গেমস তৈরি করবেন? তাহলে আসুন জেনে নেই এর আগা-গোড়া !

No Comments

তরুণদের কাছে অ্যানিমেশন গেমস খুবই জনপ্রিয়। স্মার্টফোন কিংবা ডেস্কটপে গেমসে মজে অনেকেই ঘণ্টার পর ঘণ্টা সময় ব্যয় করেন। অনেকে আছেন অন্যদের ডিজাইন করা গেমস খেলে আত্মতৃপ্তি পান না। ফলে একা একাই গেমস ডেভেলপ করতে উঠেপড়ে লাগেন। চাইলে আপনিও ঘরে বসেই পছন্দসই গেমস তৈরি করতে পারেন। এজন্য তেমন কোনো প্রতিষ্ঠানিক দক্ষতার প্রয়োজন নেই। এজন্য আপনার থাকতে হবে উদ্ভাবনী ক্ষমতা। নিজের সৃজণশীলতার বিকাশ ঘটিয়ে গেমস তৈরি করে আয় করাও সুযোগ রয়েছে। আসুন জেনে নেই কিভাবে সহজেই গেমস ডেভেলপ করা যায়।
games

গেমস তৈরির জন্য অনলাইনে বিভিন্ন গেমস ইঞ্জিন আছে। এই গেমস ইঞ্জিনের সহায়তায় সহজেই ইনডি গেমস ডেভেলপার হিসেবে আত্মপ্রকাশ করা যায়। এমনই একটি জনপ্রিয় গেমস ফ্ল্যাপি বার্ড। জনপ্রিয় গেমস ইঞ্জিনগুলো হলো, construct 2, game maker studio, game salad, stencyl, cocos-2d, RPG maker ইত্যাদি। এই গেমস ইঞ্জিন দিয়ে দ্বিমাত্রিক গেমস তৈরি করা যায়।

এই গেমস ইঞ্জিন দিয়ে windows pc, Mac OS, ubuntu linux, xbox 360, xbox one, playstation, wii U, android, ios, windows phone, tizen, firefox os, blackberry, HTML5 ইত্যাদি ফ্লাটফর্মের গেমস নির্মাণ করা যাবে |

এছাড়াও যাদের পাইথন প্রোগ্রামিং ভাষার উপর দক্ষতা আছে তারাও pygame, cocos-2d, blender ইত্যাদি দিয়ে শুরু করতে পারেন | এসব ইঞ্জিনে দক্ষ হওয়ার পর ত্রিমাত্রিক গেমস ডেভেলপের জন্য কাজ শুরু করতে পারেন। ত্রিমাত্রিক গেমস ইঞ্জিনের মধ্যে অন্যতম, unity, unreal engine, cry engine, blender, source engine, frostbite 2, glacier 2, torque 3D, kodu ইত্যাদি।

ইউটিউব ও গুগলে সার্চ করে সহজেই পেতে পারেন এসব ইঞ্জিনের জন্য প্রয়োজনীয় টিউটোরিয়াল, রিসোর্স ও বিভিন্ন ধরনের আর্টিকেল | আর আপনার তৈরি এসব গেমস বিক্রি ও পাবলিশ করার জন্য করতে পারবেন steam, desura, gamersgate, itch.io, impulsedriven, WildTengentGames এখানে।

এগুলো উইন্ডোজ পিসি, ম্যাক ও এস, লিনাক্স প্লাটফর্মে দেখতেও পারবেন | এগুলোর মধ্যে steam উল্লেখযোগ্য| বর্তমানে বেশিরভাগ গেমসই স্মার্টফোনের জন্য নির্মিত হয়। কেননা, মানুষ স্মার্টফোনের মাধ্যমেই গেমস খেলে আনন্দ উপভোগ করেন। স্মার্টফোনের গেমসের পাবলিশ করতে পারবেন google play, app store, amazon, windows phone store, tizen store ইত্যাদি পাবলিশার ওয়েবসাইটে। এছাড়াও HTML এ গেমস বিক্রি ও গেমসের বিজ্ঞাপন দেয়ার মাধ্যমেও ভাল উপার্জন করতে পারেন |

এজন্য mozilla marketplace, chrome web store, facebook, windows app store, FGL, marketJS, boostermedia, kongregate, gamemix, crazygames, softgames, itch.io ইত্যাদি পাবলিশার ওয়েবসাইট দেখতে পারেন |

গেমে ব্যবহৃত গ্রাফিক্সের ডিজাইন ও তৈরির জন্য GIMP, adobe photoshop, inkscape, paint. NET, pixie, corel paint shop pro, blender, sketchup, autodesk maya, autocad, 3d studio max, cinema 4D, zbrush, 3DS max, autodesk 123D design ইত্যাদি টুলস ব্যবহার করুন।

সাউন্ড এডিটিং এবং সাউন্ড তৈরির জন্য audacity, labchirp, ocenaudio, reper, FL studio, sony ACID music studio, sequel, reason, adobe audition, PxTone, sunvox ইত্যাদি ব্যবহার করা যেতে পারে |

সব গেমস ইঞ্জিন, গ্রাফিক্স ইঞ্জিন ও সাউন্ড ইঞ্জিনের বেশির ভাগেরই ফ্রি ভার্সন রয়েছে। কোনটি আবার একেবারেই ফ্রি |

তবে আর দেরি না করে কাজ শুরু করে দিন। পরিকল্পনা মাফিক গেমসের ডিজাইন করে গেমস ডেভলপার হিসেবে আত্মপ্রকাশ করুন।games


প্রযুক্তিকে ভালোবেসেই মূলত ব্লগইন এ আসা। তবে সব সময় আমি শখের বসেই তথ্য প্রযুক্তিকে সবার সাথে শেয়ার করার জন্য নিরালস চেষ্টা করে যাই। আমার দীর্ঘ বিশ্বাস আপনাদের কাজে লাগার মতোন কিছু শেয়ার করার চেষ্টা করে যাবো।

You might like also

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.